জাতীয়

ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে ৬৪ জেলাতেই !!!?

এ দিকে গত এক বছরে ঢাকায় যাননি এমন ব্যক্তিরাও কয়েক জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার খবরে নতুন করে উৎকণ্ঠা বাড়ছে। এডিস মশা ঢাকার বাইরেও ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। পাবনা ও রংপুরে এমন ঘটনায় স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে মশা পরীক্ষার বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিভিন্ন জেলায় সরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু চিকিৎসায় মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। পাশাপাশি বিভিন্ন স্থানে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগে অনেক ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অবশেষে দেশের ৬৪ জেলাই প্রাণঘাতী ডেঙ্গুর আওতায় চলে গেছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে নেত্রকোনা বাদে অন্য সব জেলায় ডেঙ্গুরোগী চিকিৎসাধীন থাকার কথা জানানোর পরদিন গতকাল দুপুরেই ওই জেলায় পাঁচ রোগী শনাক্তের খবর পাওয়া গেল। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরো চারজন। এর মধ্যে রয়েছেন ঢাকায় কর্মরত টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের অধিবাসী পুলিশের এক নারী এসআই। এ ছাড়া বরিশালের গৌরনদীতে নারী ও কাউখালীতে কিশোর এবং নারায়ণগঞ্জের একটি হাসপাতালে স্কুলশিক্ষিকা চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রাণ হারিয়েছেন। গৌরনদীতে নারীর মৃত্যু : বরিশাল ব্যুরো জানায়, ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে জেলার গৌরনদী উপজেলার পশ্চিম আশোকাঠী গ্রামে মঙ্গলবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে আলেয়া বেগম (৫৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি ওই গ্রামের আব্দুল মান্নান ফকিরের স্ত্রী। গৌরনদী উপজেলা হাসপাতালের আবাথসিক মেথডিক্যাল অথফিসার ডা: মাহবুব আলম মির্জা মৃতের স্বজনদের বরাত দিয়ে জানান, আলেয়া বেগম ঢাকায় বেড়াতে গিয়ে জ্বর নিয়ে গ্রামের বাড়িতে আসেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তিনি প্রাইভেট চিকিৎসক দেথখিয়ে বাথইরের একথটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ডেঙ্গু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করান। পরীক্ষার রিপোর্টে ডেঙ্গুর বিষয়থটি নিথশ্চিত হয়ে আলেয়াকে নিয়ে তার স্বজনরা চিথকিৎসার জন্য গৌরনদী উপজেলা হাসপাতালের উদ্দেশে রওনা হন। কিন্তু হাসপাতালে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়। এর আগে মঙ্গলবার সকালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুই যুবক মারা গেছেন। এ দিকে বুধবার দুপুর পর্যন্ত শেবাচিম হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত ৫০ রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যু : শরীয়তপুর সংবাদদাতা জানান, জাজিরা উপজেলার জবর আলী আকনকান্দি গ্রামের বর্ষা আক্তার (২৬) নামে এক স্কুলশিক্ষিকা ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। গত মঙ্গলবার রাতে ঢাকার সাইনবোর্ড এলাকার বেসরকারি একটি হাসপাতালে তিনি মারা যান। তিনি শরীয়তপুরের জাজিরার শাহেদ আলী মাদবরকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ছিলেন। এ ছাড়াও জেলায় গতকাল বুধবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৫ জন আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ডেঙ্গু শনাক্ত হওয়ার পর তাদের ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। কাউখালীতে কিশোরের মৃত্যু : কাউখালী (পিরোজপুর) সংবাদদাতা জানান, উপজেলার গোসনতারা গ্রামের আদম আলীর পুত্র সোহেল (১৫) ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে বরিশাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছে। সোহেল গত সোমবার প্রথমে কাউখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেয়, পরে বরিশাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার মারা যায়। এ দিকে আতঙ্কে দিনের বেলায়ও উপজেলার অনেকেই তাদের শিশুসন্তানকে মশারির নিচে রাখছেন।

প্রাণ গেল এসআই কোহিনুরের : ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা জানান, ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে পুলিশের এসআই ভূঞাপুরের কোহিনুরের (৩৩) মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত অবস্থায় প্রথমে তিনি ছিলেন রাজারবাগ পুলিশলাইনস হাসপাতালে। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে মোহাম্মদপুর সিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। গতকাল বুধবার রাজারবাগে সকাল সাড়ে ৯টায় তার প্রথম জানাজা এবং গ্রামের বাড়ি ভূঞাপুরের অর্জুনায় দ্বিতীয় জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। কোহিনুরের সর্বশেষ কর্মস্থল ছিল পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চে। জানা যায়, কোহিনুর সিটি হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গুরুতর অবস্থায় সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাকে সিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ক্রমেই তার অবস্থার অবনতি হয়। মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে কোহিনুরকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। তাহিয়া নামে তার ১৮ মাসের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

[social_share_button themes='theme1']